ইপাব কি? কিভাবে ইপাব পড়া যায়? কিভাবে ইপাব ও মুবি তৈরি করা যায়? ইপাবের সুবিধা কি?

বাংলাদেশে ইপাব ও মোবি ফরম্যাট পিডিএফের মতো দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে। এখন অনেকেই ইপাব পড়ায় আগ্রহী হচ্ছেন এবং নিজেরা ইপাব তৈরি করতে চাচ্ছেন। তাঁদের জ্ঞাতার্থে আমার এই ক্ষুদ্র প্রয়াস। গত ার্বে আমরা আলোচনা করেছিলাম কিভাবে সহজ পদ্ধতিতে পিডিএফ তৈরি করবেন? সহজ PDF Creating টিউটোরিয়াল। যাদের দরকার তারা টিউটোরিয়ালটি দেখে নিতে পারেন।


ইপাব (Epub) পরিচিতি:

ইপাব একটি জনপ্রিয় ফাইল ফরম্যাট। পিডিএফের চেয়ে ইপাবে অনেক বেশি সুবিধা পাওয়া যায়। পুরো বইটা স্ক্যানের বদলে টাইপ করা থাকে বিধায় ইপাবের সাইজ অনেক কম হয়। এছাড়াও রয়েছে ফন্ট ছোট বড় করে পড়ার সুবিধা। ইপাব সম্পর্কে আরো জানতে নিচের লিঙ্কটা দেখতে পারেন। (এটা ফেসবুকের লিঙ্ক, তাই আপনাকে আগে ফেসবুকে লগ ইন করে নিতে হবে।)

epub একটি জনপ্রিয় ফাইল ফরম্যাট। আমরা যেমন পিডিএফ ফাইল ফরম্যাটের মাধ্যমে আজ মোবাইলে বই পড়ছি তেমনি epub ফাইল ফরম্যাটের মাধ্যমে মোবাইল, ট্যবলেট কিংবা পিসিতে বই পড়া যায়। আজ পর্যন্ত যে সকল ডিভাইসে পিডিএফ বই পড়া যাচ্ছে সেই সকল ডিভাইসেই ইপাব বইও পড়া যায়। বরং অনেক ডিভাইস আছে যে গুলোতে পিডিএফ বই পড়া যায় না কিন্তু ইপাব পড়া যায়।

১. ইপাব কি?

ইপাব হলো- ইলেকট্রনিক পাবলিকেশন। সহজ অর্থে আমরা যাকে ইবুক বলে থাকি। যে বইগুলো ইলেকট্রনিক যন্ত্রাংশে পড়ার জন্য প্রকাশ করা হয় সেই বইগুলোকেই ইবুক বলে। ইপাব ছাড়াও আরও একটি বই পড়ার জয়প্রিয় ফরম্যাট হলো “মোবি”।

২. ePUB পড়তে কি আলাদা সফ্টওয়্যার লাগে?

অবশ্যই। পিডিএফ বই পড়ার জন্য যেমন এডোবি রিডারে প্রয়োজন হয় তেমনি ePUB বই পড়ার জন্যও ePUB রিডার লাগবে। ePUB পড়ার জন্য আলাদা ডিভাইস থাকলেও যেকোন মোবাইলে এ্যাপস ডাউনলোড করেও মোবাইলে ইপাব বই পড়া যায়।

৩. ePUB এর সুবিধা কি?

# ইপাব বই ডিভাইসের সাথে সামঞ্জস্য বজায় রাখতে পারে। অর্থাৎ বই পড়ার সময় জুম করে বই পড়তে হয় না। ডিভাইসের স্ক্রিন ছোট কিংবা বড় কোন কিছুতেই কোন সমস্যা হয় না।

# বই থেকে লেখা কপি করা যায় এবং যেখানে খুশি সেখানে শেয়ার করা যায়।

# লেখার ফন্ট সাইজ পরিবর্তন করা যায়। ফন্টের রং পরিবর্তন করা যায় এমনকি বইয়ের ব্যাকগ্রাউন্ড কালার পরিবর্তন করা যায়।

# ইপাব খুব হালকা বলে কম জায়গায় অনেক বেশি বই রাখা যায়। এতে মেমোরির অপচয় কম হয়।

# যারা চোখে কম দেখেন কিংবা ছোট লেখা পড়তে সমস্যা হয় তাদের জন্য ইপাব এক যুগান্তকারী সমাধান। বিশেষ করে যারা বয়সে বৃদ্ধ কিন্তু ডিজিটাল ডিভাইসে বই পড়তে আগ্রহ আছে তাদের জন্য ইপাব সত্যিই একটা অসাধারন সমাধান।

# ইপাবে বইয়ের পছন্দের কোন লাইন মার্ক করে রাখা যায়। সেটাতে কমেন্ট যুক্ত করা যায়। পরবর্তীতে শুধু মার্ক করা অংশ এক্সপোর্ট করে রাখা যায়।

# নির্দিষ্ট পাতা বুকমার্ক করে রাখা যায়।

# সার্চের মাধ্যমে খুব সহজেই তথ্য খুঁজে বের করা যায়।

# ডে/নাইট রিডিং মুড সুবিধা পাওয়া যায়।

৪. কোথা থেকে এ্যাপস ডাউনলোড করবেন?

এন্ড্রোয়েড-এর জন্যঃ

Android ব্যবহারকারীদের জন্য অনেকগুলো এ্যাপস আসে Playstore এ। যেমন: alrader, Moon+rader, FB Reader, Epub reader for android, elibrary manager basic ইত্যাদি। এগুলোর মধ্যে যেকোন একটি ডাউনলোড করে নিযে খুব সহজে ইপাব বই পড়া যায়।

Windows Phone এর জন্যঃ

আর যারা windows phone ব্যবহার করছেন তারা এ্যাপস স্টোর থেকে tucan reader.লিখে সার্চ অথবা এই লিঙ্ক থেকে ডাউনলোড করে নিন



কম্পিউটারের জন্য:

Sumatra PDF একটি অসাধারন পিডিএফ রিডার। এইটা পিডিএফ রিডার হলেও এর সাহায্যে epub এবং mobi ফাইল খুব চমৎকারভাবেপড়া যায়। এই লিঙ্ক থেকে সফ্টটি ডাউনলোড করে নিন।



Amazon Kindle এর জন্য:

বর্তমানে কিন্ডেল ফায়ার Android OS এর Customized ভার্সন। ফলে এটিতে যেমন Android apk ব্যবহার করা যায় তেমনি Amazon Store থেকেও এ্যাপস ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যায়। আপনি যদি কিন্ডেলে Android Apps ব্যবহার করতে চান তবে উপরে Android Apps তালিকা থেকে যে কোন একটি এ্যাপ এর অফলাইনর্ apk ডাউনলোড করে নিন। আর যদির্ Amazon থেকে ডাউনলোড করতে চান তবে eLibrary Manager Basic এই এ্যাপটি ব্যবহার করুন।

Apple ডিভাইসের জন্য:

iphone কিংবা ipad এ ইপাব বই পড়ার জন্য ibooks এ্যাপ ব্যবহার করুন।

একটি ইপাব বই তৈরী করতে আমাদের অনেক সময়ের অপচয় হয়। তবুও আমরা ইপাব বই তৈরী করে যাচ্ছি। আমরা চাই যারা বই পড়েন তারা যেন বই পড়তে গিয়ে আরও অনেক বেশি সুবিধা পায়। বই পড়াতে যেন তাদের কোন বাধা না থাকে। আমাদের সব ডিভাইসেই বাংলা ইপাব বই পরীক্ষা করা শেষ। সুতরাং...

শুরু হোক আপনার ইপাবে বই পড়ার পথ চলা। এই শুধু কামনায় বিদায় নিচ্ছি আমি শিশির শুভ্র। ভাল থাকবেন সবাই।



ইপাব তৈরি:

দরকারি সফটওয়্যারগুলো নামিয়ে ফেলুন:

১। Adobe Acrobat Pro সাইজ: ৬৩৭ মেগাবাইট [এই সফটওয়্যারটা PDF এডিটের জন্য খুব দরকারী]

ডাউনলোড লিঙ্ক

২। Sigil ডাউনলোড লিঙ্ক

৩। Calibre - E-book Management ডাউনলোড লিঙ্ক

৪। Microsoft Word (এটা না হলেও চলবে)

ইপাব বানাতে গেলে আপনার প্রথমেই প্রয়োজন বইয়ের টেক্সটগুলো। এর জন্য কি পুরো বইটা বসে বসে টাইপ করবেন? উঁহু, এখন বাংলা OCR করা যায়। অর্থাৎ এই পদ্ধতিতে কোনো বইয়ের পাতার ছবি থেকে সরাসরি লেখাগুলো টেক্সট ফরম্যাটে রূপান্তর করা যায়। এই প্রসেসের জন্য লাগবে একটা Google অ্যাকাউন্ট। স্ক্যান করা PDF Google Drive-এ আপলোড করে সেটাকে OCR করা যায়। তার মানে, যে বইটার ইপাব বানাবেন, OCR করার জন্য সে বইটার PDF লাগবে। যদি ঐ PDF-টা ইন্টারনেটে থাকে তবে তো ভালোই। নতুবা স্ক্যানার দিয়ে স্ক্যান করে PDF তৈরি করে নিতে হবে। কিভাবে স্ক্যান করে PDF বানাবেন তার সহজ-সরল টিউটোরিয়ালটা মারুফ ভাই তৈরি করেছেন। নিচের লিঙ্কটা দেখুন।


এবার আসি আসল কথায়। Google Drive-এ 2 MB-র বেশি সাইজের PDFকে OCR করা যায় না। তাই আপনার PDFকে 2 MB করে কয়েকটি ভাগে বিভক্ত করে ফেলতে হবে। এর জন্য দরকার Adobe Acrobat Pro সফটওয়্যার। এটা ডাউনলোড করে ইন্সটল করে ওপেন করুন (অবশ্যই “Installation Notes” অনুসরণ করবেন)। এটা দিয়ে বইটা ওপেন করে Tools > Pages > Split Document এ যান। তারপর Max MB: 2 রেখে OK ক্লিক করুন। যাঁরা বুঝতে পারছেন না, নিচের ছবিটা দেখুন।


এতে আপনার PDFটা 2 MB-র কয়েকটি PDF-এ বিভক্ত হয়ে যাবে। এরপর PDFগুলো Google Drive-এ আপলোড করুন। পরবর্তীতে ফাইলগুলো Open with > Google Docs ক্লিক করে OCR করুন এবং টেক্সটগুলো কোথাও Save করে রাখুন (Notepad বা Microsoft Word যেখানে খুশি)। ব্যস, OCR-এর কাজ শেষ।

এরপরে শুরু হবে ধৈর্য্যের পরীক্ষা। OCR করা টেক্সটে অনেক ভুল থাকে, এমনকি কোনো কোনো লাইন বাদ পড়ে যেতে পারে। আপনাকে সেগুলো মূল বই দেখে ঠিক করতে হবে। এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আপনি চাইলেই পুরোপুরি ১০০% নির্ভুল ইপাব তৈরি করতে পারেন, মূল বইয়ের ভুলগুলোও শুধরে দিতে পারেন। সেই ইপাবগুলো প্রশংসার দাবিদার।

বেশ খাটাখাটনি করে টেক্সটগুলো ঠিক করার পর আপনাকে ইপাব বানাতে হবে। এক্ষেত্রে যে সফটওয়্যারটা দরকার হবে সেটি হলো Sigil. ইপাব তৈরির জন্য এটা বেস্ট। Calibre দিয়েও ইপাব বানানো যায়, তবে তেমন সুন্দর হয় না। Sigil ব্যবহার করা খুবই সোজা, আপনি নিজেই পারবেন। এটা দিয়ে এক ক্লিকেই Table of Contents তৈরি করে ফেলা যায়। ইপাব বানিয়ে Save করে ফেলুন।

আপনি যদি মোবি ফরম্যাটও তৈরি করতে চান, তবে Calibre সফটওয়্যারটা লাগবে। এই সফটওয়্যারটা অনেক কাজের। এক ফরম্যাট থেকে অন্য ফরম্যাটে ই-বুক রূপান্তর করতে এই সফটওয়্যারের জুড়ি নেই। একটু আগে যে ইপাবটা বানালেন, সেটা Calibre সফটওয়্যার দিয়ে ওপেন করুন (একদম ওপরে বামপাশে “Add books” এ ক্লিক করুন)। তারপর “Convert books” এ যান। তখন একদম ওপরের ডানপাশে “Output format” দেখতে পাবেন।


সেখানে আপনার পছন্দমত ফরম্যাট দিয়ে OK ক্লিক করুন। কাজ শেষ। সেটা আপনার পূর্বে দেখানো ফোল্ডারে গিয়ে Save হবে।

Calibre সফটওয়্যার দিয়ে ইপাব বানানো শিখতে চাইলে শিশির শুভ্র’দার বানানো ভিডিও টিউটোরিয়ালটা দেখতে পারেন।



এতগুলো ধাপ অতিক্রম করে ইপাব বানানো সত্যিই অনেক কষ্টসাধ্য। আমার মনে হয় অনেকে একসাথে এগিয়ে এলে আর এত কষ্ট হয় না। ১০ জনে ১০ পাতা করে তৈরি করলেই ১০০ পাতার বই তৈরি হয়ে যায়। তাই আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি যাঁরা আগ্রহী আছেন, তাঁদের সাথে ভাগ করে কাজ করব। (আগ্রহীরা ইনবক্সে যোগাযোগ করতে পারেন।)


ডাউনলোড করতে সমস্যা হলে বা ডাউনলোড করতে না পারলে এখানে দেখুন কিভাবে ডাউনলোড করতে হয়?

কমেন্ট করার জন্য ধন্যবাদ। Conversion Conversion Emoticon Emoticon